আজ রবিবার, ১৭ই আশ্বিন ১৪২৯, ২রা অক্টোবর ২০২২

নাচোলে সার নিয়ে অবৈধ ব্যবসায়ীদের কারসাজি-ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষকরা

  • ২৬শে আগস্ট ২০২২ রাত ০৮:৪৩:২০
  • নাচোল

মেহেদি হাসান

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল উপজেলায় সার নিয়ে চলছে তুঘলকি কাণ্ড। এখানে সরকারি নিয়ম নীতির উপেক্ষা না করে সরকারি  লাইসেন্স না থাকার পরেও অবৈধভাবে বিভিন্ন জায়গা থেকে সার এনে চড়া দামে বিক্রি করছেন । এতে একদিকে যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষকরা অন্যদিকে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সরকারি লাইসেন্সধারী ডিলাররা ।  এ নিয়ে সম্প্রতি নাচোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার  মোহাইমেনা শারমিন নাচোল বাজার ও রাজাবাড়ি এলাকার দুই সার ব্যবসায়ীকে সতর্ক করেছেন।

সরেজমিন পরিদর্শন ও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে নাচোল উপজেলায়  বিসিআইসি অনুমোদিত সার ডিলার না হয়েও তারা প্রকাশ্য কৃষকদের কাছে সরকারি দামের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্যে ইউরিয়া পটাস সহ বিভিন্ন সার বিক্রয় করছে। 

অনুসন্ধানীতে  জানা গেছে,  নাচোল বাজারে তরিকুল ইসলাম ও রাজাবাড়ী এলাকায় তরিকুল ইসলাম এর ভাইয়ের সারের দোকানে  অভিযানের পর  সেখানে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে উপজেলা কৃষি অফিসকে তদারকি  করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হলে সঠিকভাবে  সার বিক্রি হলেও আরও তিনটি দোকানে সঠিক লাইসেন্স না থাকার পরও অবৈধভাবে বাজারে অতিরিক্ত দামে বিক্রি করছে নাচোল সিংরইল বাজারে  মেসার্স মাসুম এন্টারপ্রাইজ এর প্রোপাইটার মতিউর রহমান নওয়াপাড়া, নগরবাড়ি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা হতে অবৈধভাবে স্যার ক্রয় করে এনে তার দোকান হতে  ১০০ গজ দূরে বাড়ির পাশে গোডাউনে রেখে কৃষকদের কাছে অতিরিক্ত দামে সার বিক্রয় করছে। তার গোডাউনে এমওপি পটাস, টিএসপি সহ বিভিন্ন ব্যান্ডের ডিএপি ইউরিয়া সার মজুদ করে রেখে সরকারি দামের চেয়ে অধিক মূল্যে দেদারসে সার বিক্রি করছে। সেখানে দেখা গেছে,  এমওপি সারের সরকারি মূল্য  ৭৫০টাকা হলেও সে বিক্রি করছে ১৬০০টাকা, ডিএপি সারের সরকারি মূল্য ৮০০ টাকা হলেও সে বিক্রি করছে ১০০০ থেকে ১২০০টাকায়, টিএসপি সরকারি মূল্য ১১০০ হলেও সে বিক্রি করছে ১৬০০ টাকায়, ইউরিয়া সরকারি মূল্য ১১০০ থাকলেও বিক্রি করছে ১২০০ টাকায়। এছাড়াও সুইটি পেট্রোল পাম্পের পাশে ইব্রাহিম ট্রেডার্স এর প্রোপাইটার মোঃ ইব্রাহিম বিভিন্ন জায়গা থেকে এনে তার গোডাউনেসার মজুদ করে সরকারি মূল্যের চেয়ে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা  অতিরিক্ত দরে বিক্রি করছে। অন্যদিকে অন্যদিকে নাচোল বাজারে অনুসন্ধান করে দেখা গেছে তৌহিদ এন্ড ব্রাদার্স ও বিভিন্ন জায়গা থেকে অবৈধভাবে স্যার এনে গোডাউন জাত করে সরকারি মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করছে। 

নাম প্রকাশ না করার সত্ত্বে কয়েকজন কৃষকরা জানান, নাচোলে  মাঠে মাঠে চলছে আমন ধান রোপণের ভরা মৌসুম।  এ সময় সংকট দেখিয়ে আবার অবৈধভাবে বিভিন্ন জায়গা হতে এনে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি দামে সার বিক্রি করছেন। সার সংকটের কারণে আমনের আবাদ ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি উৎপাদন খরচ বৃদ্ধির আশঙ্কা প্রান্তিক চাষি ও কৃষকদের। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাইমিনা শারমিন জানান, নাচোল উপজেলায় যাতে কৃষকের স্যারের ঘাটতি বা অতিরিক্ত মূলে কিনতে না হয় সেজন্য নাচোল উপজেলা প্রশাসন সচেতন রয়েছে। এর আগে দুইটি দোকানে সতর্ক করা হয়েছে অন্যন্যদের বিষয়ে অভিযোগ পেলে গ্রহণ করব।


মন্তব্য সমুহ
০ টি মন্তব্য
মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন
এই শ্রেনির আরো সংবাদ

ফিচার নিউজ