আজ মঙ্গলবার, ২২শে ফাল্গুন ১৪৩০, ৫ই মার্চ ২০২৪

শিশুদের আনন্দময় শৈশব নিশ্চিতে কাজ করছি : কালেক্টরেট ইংলিশ স্কুলের অনুষ্ঠানে-জেলা প্রশাসক

মেহেদি হাসান

চাঁপাইনবাবগঞ্জে কালেক্টরেট ইংলিশ স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া, বনভোজন, পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান-২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১০  ফেব্রুয়ারি  ) সকালে স্কুল প্রাঙ্গনে এসব কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসিবে বক্তৃতা করেন জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন।

জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁন তাঁর বক্তব্যে বলেন, এখানে একটি বিশেষায়িত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দরকার ছিল। সেটি আমরা করেছি। তবে স্কুল, কলেজ মাদ্রাসহ সকল পর্য়ায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দিকে আমাদের সুনজর রয়েছে। জেলা প্রশাসক বলেন, শিক্ষা হচ্ছে শিশুদের সাংবিধানিক অধিকার, সেই অধিকার বাস্তবায়নে আমরা কাজ করছি। আমরা মানসম্মত শিক্ষার জন্য কাজ করছি, শিশুদের আনন্দময় শৈশব নিশ্চিতে কাজ করছি। 

সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন লেডিস ক্লাব ও জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মাহফুজা সুলতানা।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন স্থানীয় সরকার, চাঁপাইনবাবগঞ্জের উপ-পরিচালক ও সরকারের উপসচিব দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. তাছমিনা খাতুন। অভিভাবকদের মধে বক্তব্য দেন নাহিদা ইয়াসমিন পপি, এইচ এম এল হাকিম ও শিল্পী পারভীন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. আনিছুর রহমান। সূচনা বক্তব্য দেন স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপল সাদিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন সিহকারী শিক্ষক কাজেম আলী, মো. সিরাজ। 

প্রসঙ্গত, আধুনিক, মানসম্মত, বিশ্ব মানের শিক্ষা প্রদান করে আগামীর বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য সৎ, যোগ্য, সৃষ্টিশীল, আত্মবিশ্বাসী, বিজ্ঞানমনস্ক, দেশপ্রেমিক, দায়িত্বশীল, মুক্তচিন্তার অধিকারী, মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন সুনাগরিক হিসেবে শিশুদের গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে ২০২০ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হকের নেতৃত্বে কালেক্টরেট ইংলিশ স্কুলটি ৭জন শিক্ষার্থী নিয়ে অস্থায়ী ভবনে পাঠদানের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। পরবর্তী জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ আরো খানিকটা এগিয়ে নেন এবং বতর্মান জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁনের নেতৃত্বে এখন এটি একটি মান সম্মত স্কুল হিসেবে গড়ে উঠেছে। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। গতবছর ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ছিল ২০২ জন। বর্তমানে ৩০৭ জন ছাত্রছাত্রী নিয়মিত পাঠগ্রহণ করছেন। ৭টি শ্রেণীতে পাঠদান করাচ্ছেন ৯জন শিক্ষক। 


মন্তব্য সমুহ
০ টি মন্তব্য
মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন
এই শ্রেনির আরো সংবাদ

ফিচার নিউজ