আজ শুক্রবার, ২৪শে বৈশাখ ১৪২৮, ৭ই মে ২০২১

ভূয়া সাংবাদিক ও ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে গণ ধোলাই

রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার কামারপাড়া এলাকার একটি বেকারিতে সাংবাদিক ও ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় ৪জনকে গণ ধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টায় গোদাগাড়ির কামার পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, চাঁদা দাবী করলে তাদের পরিচয় জানতে চাওয়া হলে একতালে বলে উঠে, “আমরা ৩ জন সাংবাদিক“। আর ওই যে নাসির স্যার উনি একজন ম্যাজিস্ট্রেট। র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সেজে ওই বেকারির দোকানে অভিযান পরিচালনা করতে ঢুকেন তারা।

ভুয়া সাংবাদিকরা  হলো, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার আলমগীর হোসেন, শুভ ও  গোদাগাড়ির সাফিয়ান স্বাধিন। এ সময় তারা ওই বেকারির মালিক এর কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। তারা বার বার ভোক্তা অধিকারের নাম বলা-বলি করছিলো।

এক পর্যায়ে বেকারির মালিকর সন্দেহ হয়। এরা তো নিজেই ম্যাজিস্ট্রেট, তো বারবার ভোক্তা- অধিকারকে দিয়ে কেন অভিযান করাবে? ওই ৪ জন মিলে ওই বেকারির মালিকে হুমকি দিাচ্ছলো, এটা করবো, জরিমানা করবো, জেল দিবো, অস্বাস্থ্যকর খাবার ইত্যাদি বলে ভয়ভিতি দেখাচ্ছিলো।

বেকারির মালিক যখন সন্দেহ করে বলে নাসির কী আসলেই ম্যাজিস্ট্রেট। তারা ভয়ে ভিত হয়ে উত্তর দিলো, তো আপনার কী মনে হয়। পরে তাদের ৩জন সাংবাদিকের কার্ড বের করে দেখায়। এক পর্যায়ে ওই ৪ জনকে স্থানীয়রা দড়ি দিয়ে বাধেঁ। এরপর তাদেরকে বেধড়ক মারতে থাকে।

ওই বেকারির মালিক আব্দুল মতিন (বিপু) জানান, আমি বাড়িতে ছিলাম। আমার ছোট ভাই বললো ভাইয়া,কয়েকজন সাংবাদিক এসেছে, আর একজন ম্যাজিস্ট্রেট এসেছে। যে ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন তার নাম নাসির। এলাকায় যখন লোকজন জমায়েত হয়েছে তখন ওই ম্যাজিস্ট্রেটসহ সবাই চলে যেতে যাচ্ছিলো। সাংবাদিক আলমগীর ভাই একজন ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট বানিয়ে নিয়ে আসবে এটা ভাবতে পারিনি।

তাদের দু এক থাপ্পড় মারা হয়েছে। থানা থেকে লোকজন আসছিলো আমরা বাধাঁ দেয়।পরে ওই ম্যাজিস্ট্রেটের ভাই এসে মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।

সুত্র আরো জানায়, ৬১ হাজার টাকা নিয়ে মুচলেকা ছেড়েছে। এর আগে গতবছরে ২২ জানায়ারী ২০২০ তারিখে গোদাড়িতে টমোটর আড়তে গিয়ে চাঁদা বাজির সময় আলমগির ও সাফিয়ান স্বাধীনকে গণ ধোলাই দিয়েছিলো স্থানীয়রা।

মন্তব্য সমুহ
০ টি মন্তব্য
মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন
এই শ্রেনির আরো সংবাদ

ফিচার নিউজ