আজ মঙ্গলবার, ২০শে শ্রাবণ ১৪২৭, ৪ঠা আগস্ট ২০২০

নাচোলে বৃষ্টির পানিতে আমনের আগাম আবাদ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : চাঁপাইনবাবগঞ্জের বরেন্দ্র অঞ্চল নাচোলে আষাঢ়ের আগাম বৃষ্টি হওয়ায় সেই পানিতে আমনের আবাদ শুরু করেছে কৃষকরা। গত বছর আষাঢ় মাসে বৃষ্টিপাত দেরীতে হওয়ায় কৃষকরা গভীর নলকুপের পানি সেচ দিয়ে আষাঢ়ের শেষের দিকে আবাদ শুরু হয়। কিন্তু এবছর আগাম বৃষ্টিপাত হওয়ায় কৃষকরা আগাম আবাদ শুরু করে দিয়েছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বুলবুল চৌধরী জানান, এবছর আমন  আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ৩০হাজার হেক্টোর। মৌসুমে জিরাশাইল, স্বর্ণা, গুটিস্বর্ণা, বিনা-, ব্রী-৪৯ ৫১জাতের ধানের আবাদ করছেন কৃষকরা। এর আগের বছর আউস আবাদ হয়েছে প্রায় ৬হাজার হেক্টোর। বেশ কয়েক বছর ধরে অনেক আবাদি জমিতে আম গাছ লাগানের কারনে কৃষকরা সেসব জমিতে আমের পাশাপাশি ধানও চাষ করছেন।

উপজেলার কসবা ইউনিয়নে আগাম জাতের আউস আবাদ হয়েছে বেশী। উপজেলার নাচোল, নেজামপুর ফতেপুর ইউনিয়নে আষাঢ়ের বৃষ্টির পানিতে জোরেশোরেই একযোগে আবাদ শুরু হয়েছে। এবছর গভীর নলকুপের পানি সেচ খুব বেশী হয়নি। আগাম বৃষ্টির পানি ধরে জমি প্রস্তুত করার ফলে এবছর উৎপাদন খরচ কিছুটা কম হবে বলে কৃষকরা আশা করছেন। এবছর বীজতলায় আমনের বীজচারা খুবই ভাল হয়েছে, তাই ধানের চারার সংকট হয়নি।

উপজেলার নাচোল ইউনিয়নের হাঁকরইল গ্রামের কৃষক আলহাজ্ব সেকান্দার আলী, আন্ধরাইল গ্রামের জাইফুল, নেজামপুর ইউনিয়নের আব্দুল জাব্বার, জগদোইল গ্রামের কামরুল ইসলাম, ফতেপুর ইউনিয়নের টাকাহারা গ্রামের জামিরুল ইসলাম জানান, কৃষকরা গত বোরো ধানের ভাল মূল্য পাওয়ায় মৌসুমে তারা আমন ধান চাষ করতে আগ্রহ বাড়িয়েছেন। অনেক কৃষক আমবাগানে যেন আগাছা না জন্মে তার জন্য এবছর আমবাগনেও ধানের চাষ করছেন।


উপজেলা কৃষি অফিস চলতি মৌসুমের আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা জানাতে পারলেও ফলনের লক্ষ্যমাত্রা আবহাওয়া রোগবালাই মোকাবেলা করে কী পরিমান ফলন হতে পারে তা পরে জানা যাবে বলে জানিয়েছেন। উপজেলা কৃষি অফিসার বুলবুল চৌধুরী ফসলের জন্য কৃষি অফিসে যোগাযোগ করতে পরামর্শ গ্রহণের জন্য কৃষকদের আহ্বান জানান।

মন্তব্য সমুহ
০ টি মন্তব্য
মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন
এই শ্রেনির আরো সংবাদ

ফিচার নিউজ